অবশেষে মিয়ানমার মুক্তি দিল রয়টার্সের দুই সাংবাদিককে

Comments
মিয়ানমারে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে প্রতিবেদন করে দণ্ড পাওয়া রয়টার্সের দুই সাংবাদিককে মঙ্গলবার, ৭ মে, ২০১৯, সকালে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে যে মিয়ানমারের নববর্ষ উপলক্ষে প্রথাগত প্রেসিডেন্টের বিশেষ ক্ষমায় তাদের মুক্তি দেওয়া হয়।

সাংবাদিকতার অন্যতম শ্রেষ্ঠ পদক পুলিৎজার প্রাপ্ত রয়টার্সের দুই সাংবাদিক হলেন ওয়া লোন (৩৩) ও কিয়াও সোয়ে ও (২৯)। ১০ রোহিঙ্গা পুরুষ ও যুবককে হত্যার ঘটনা তদন্ত করার সময় ২০১৭ সালের ডিসেম্বরের ১২ তারিখ সন্ধ্যায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয় এবং সরকারী গোপনীয়তা আইন ভঙ্গের অভিযোগে দুজনকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। ১৭ মাসের বেশি সময় ধরে বন্দী থাকার পর অবশেষে ছাড়া পেলেন তারা।

Reuters02

হাস্যজ্জ্বল ওয়া লোন ও কিয়াও সোয়ে ও কারাগারের গেট পার হয়ে হেঁটে আসছেন।

রয়টার্সের প্রধান সম্পাদক স্টিফেন অ্যাডলার এক বিবৃতিতে বলেন, ‘মিয়ানমার আমাদের সাহসী সাংবাদিকদের কারামুক্ত করায় দারুণ খুশি হয়েছি। ৫১১ দিন ধরে কারাবাস করা এই দুই সাংবাদিক সারা বিশ্বে গণমাধ্যম স্বাধীনতার প্রতীক হয়ে উঠেছেন। তাদের ফিরে আসাকে আমরা স্বাগত জানাই।’

২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে রাখাইন রাজ্যে সংঘটিত গণহত্যার চিত্র ফাঁস করার অপরাধে তাদের এই সাজা হয়েছে বলে ধারণা করছেন সমর্থকেরা। তবে মিয়ানমার সরকারের দাবি, দুই সাংবাদিকের কাছে নিরাপত্তাবিষয়ক দলিল-দস্তাবেজ ছিল। তবে মিয়ানমার পুলিশের এক অফিসার আদালতে সাক্ষ্য দেন যে এই নিরাপত্তাবিষয়ক দলিল-দস্তাবেজ সাংবাদিকদের নয় বরং গোয়েন্দারাই অভিযুক্ত সাংবাদিকদের কাছে ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে এগুলো পৌঁছে দিয়েছিল। তবে এই সাক্ষ্য আদালত অগ্রাহ্য করে।

অধিকার সংরক্ষণ দল ও আইনি বিশেষজ্ঞরা জানান, রয়টার্সের সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাটি অনিয়মে জর্জরিত ছিল।

ছবি: রয়টার্স
বাঙালীয়ানা/এসএল

মন্তব্য করুন (Comments)

comments

Share.