আন্দোলন, রন্ধন, অর্থনীতি, সর্বত্রই দৌরাত্ম অভিজিতের!

Comments

সুইডিশ রয়্যাল একাডেমি অর্থনীতিতে ২০১৯ সালের নোবেলের জন্য যৌথভাবে অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়, এস্তের দুফ্লো এবং মাইকেল ক্রেমার, এই তিনজনের নাম ঘোষণা করে বলেছে, ‘বৈশ্বিক দারিদ্র্য নিরসনে এই ত্রয়ী আমাদের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে ইতিবাচক ভূমিকা রেখেছেন। মাত্র দুই দশকে তাদের পরীক্ষামূলক গবেষণা উন্নয়ন অর্থনীতির মোড় পরিবর্তনে সহায়তা করেছে। এটা গবেষণার একটি নতুন ক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে।’ একাডেমি আরও বলেছে, এই তিনজনের পরীক্ষামূলক গবেষণা পদ্ধতি ৫০ লাখের বেশি ভারতীয় শিশুকে উপকৃত করেছে।

Abhijit Banerjee_Duflo_Kremer02

তিন নোবেল বিজেতা মাইকেল ক্রেমার, অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়, এস্তের দুফ্লো

অর্থনীতিতে এ বছর তিন নোবেল বিজয়ীর একজন ভারতীয় বাঙালী, মার্কিন অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, অমর্ত্য সেন ও ড. মুহম্মদ ইউনুসের পর চতুর্থ বাঙালী নোবেলজয়ী অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়।

মা নির্মলা বন্দ্যোপাধ্যায় ও বাবা দীপক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সন্তান অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় ১৯৬১ সালের ২১ ফেব্রুয়ারী কোলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন।

বাবা ছিলেন কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজের অর্থনীতি বিভাগের প্রধান ও অধ্যাপক এবং তার মা ছিলেন সেন্টার ফর স্টাডিজ ইন সোশ্যাল সায়েন্সেস, কলকাতার অর্থনীতি বিভাগের একজন অধ্যাপক।

অভিজিৎ বালিগঞ্জের সাউথ পয়েন্ট স্কুল এবং কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজে লেখাপড়া করেন, যেখান থেকে ১৯৮১ সালে অর্থনীতিতে বি.এস ডিগ্রি অর্জন করেন। পরবর্তীতে তিনি ১৯৮৩ সালে দিল্লীর জওহরলাল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে এম.এ ডিগ্রি সম্পন্ন করেন।

Abhijit Banerjee06

অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়

২০১৬ সালের জেএনইউ-তে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ নিয়ে যে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল তাই নিয়ে অভিজিৎ একটি কলম লেখেন। অভিজিৎ সে লেখায় জানিয়েছিলেন যে ছাত্রজীবনে তাকে দশ দিন তিহার জেলে কাটাতে হয়েছিল। জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে অভিজিতের শেষ বছর ১৯৮৩ সাল সেটা। সে বছরই ছাত্র সংসদের প্রেসিডেন্টকে বরখাস্ত করার ঘটনার প্রতিবাদে উপাচার্যকে অনির্দিষ্টকালের জন্যে ঘেরাও করেন অভিজিতরা। সে কারণেই তাঁদের গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়া হয় তিহার জেলে।

অভিজিৎ সেই ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে লেখেন, ‘আমাদের রীতিমতো পেটানো হয়েছিল। তারপরে তিহার জেলে নিয়ে যাওয়া হয়। দেশদ্রোহিতার অভিযোগ আনা হয়েছিল আমাদের নামে। এমনকি, খুনের চেষ্টার ধারাতেও মামলা দেওয়া হয়। পরে সেই ধারা তুলে নেয় পুলিশ। কিন্তু দশটা দিন তিহার জেলেই রাত্রিবাস করতে হয়েছিল সে বার।’

নিজের লেখায় অতীত তুলে এনে এই ধরনের ঘটনাকে ‘রাষ্ট্রের গা-জোয়ারি’ বলেও উল্লেখ করেন অভিজিৎ বিনায়ক। তাঁর মতে, ১৯৮৩ বা ২০১৬, দু’বারই বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো সুরক্ষিত পরিসর আর নিরাপদ থাকেনি রাষ্ট্রের হস্তক্ষেপের ফলে।

সেই জেলফেরত অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায় ১৯৮৮ সালে তিনি হাভার্ড ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি লাভ করেন।

Abhijit Banerjee05

অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়

বর্তমানে ম্যাসাচুসেটস ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি’র অধীনে ফোর্ড ফাউন্ডেশন এর অর্থনীতি বিভাগে আন্তর্জাতিক অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত অভিজিৎ শিক্ষকতার পাশাপাশি একাধিক আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জড়িত। তিনি আব্দুল লতিফ জামিল পোভার্টি অ্যাকশন ল্যাব Abdul Latif Jameel Poverty Action Lab (J-Pal) এর সহপ্রতিষ্ঠাতা।

অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় the Bureau for the Research in the Economic Analysis of Development (BREAD) এর সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তিনি National Bureau of Economic Research (NBER) এর সহযোগী গবেষক, এবং Centre for Economic Policy Research (CEPR) ফেলো গবেষক।  অভিজিৎ Kiel Institute এর আন্তর্জাতিক গবেষণা ফেলো। অভিজিৎ বিনায়েক বন্দ্যোপাধ্যায় একাধারে American Academy of Arts and Sciences, Econometric Society, Guggenheim এবং Alfred P. Sloan ফেলো।  তিনি ২০০৯ সালে অর্থনীতির সামাজিক বিজ্ঞান ক্যাটাগরিতে ইনফোসিস পুরস্কার লাভ করেন।

অভিজিৎ বিশ্বের বিভিন্ন জার্নালে অর্থনীতি প্রসঙ্গে অসংখ্য লেখা প্রকাশ করেন। তার ৪টি বই প্রকাশিত হয়। তার মধ্যে  ২০১২ সালে “পুওর ইকোনমিকস” Poor Economics (www.pooreconomics.com) এর জন্যে এস্তের দুফ্লো ও অভিজিৎ যৌথভাবে Goldman Sachs Business Book of the Year অ্যাওয়ার্ড লাভ করেন।

Abhijit Banerjee_Duflo03

হাস্যোজ্জ্বল অভিজিৎ দুফ্লো দম্পতি

২০১৩ সালে তৎকালীন জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি-মুন এর সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার Post-2015 Development Agenda বিশেষজ্ঞ প্যানেলে কাজের জন্য নিয়োগপ্রাপ্ত হন। ২০১৪ সালে তিনি Kiel Institute for the World Economy (IfW Kiel)থেকে Bernhard Harms পুরস্কার লাভ করেন।

নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায় ভাল রাঁধতে পারেন। শাস্ত্রীয় সঙ্গীতে তাঁর যাতায়াত অবাধ।

কলকাতার মেয়ে এমআইটির বিশ্ব সাহিত্য ও সংস্কৃতির প্রভাষক অরুন্ধতী তুলি বন্দ্যোপাধ্যায় অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রথম স্ত্রী। ২০১৬ সালে মারা যান এ দম্পতির ছেলে কবির। অভিজিৎ ২০১০ সালে তার গবেষণা সঙ্গী এস্তের দুফ্লোর সঙ্গে বুসবাস শুরু করেন, ১৮ মাস পরে তাদের সন্তান হয়। অভিজিত-অরুন্ধতি দম্পতির বিবাহবিচ্ছেদের পরে ২০১৫ সালে সামাজিকভাবে অভিজিতের জীবনসঙ্গী হন এস্তের দুফ্লো। বর্তমানে অভিজিৎ-এস্তেরের দুইটি সন্তান।

ছবি: ইন্টারনেট

বাঙালীয়ানা/এসএল

মন্তব্য করুন (Comments)

comments

Share.