আবু বকর সিদ্দিকের জন্য অঞ্জলি। স্বকৃত নোমান

Comments

কথাসাহিত্যিক ও কবি আবুবকর সিদ্দিক প্রয়াত হলেন। একটি দীর্ঘ ও বৈচিত্রপূর্ণ জীবনের অবসান হলো। এক সময় তিনি সাভারে থাকতেন, সাভার বাজারের পেছনে একটা ভাড়া বাড়ির তৃতীয় তলায়। আমার বাসা ছিল সাভারের রেডিও কলোনি এলাকায়। হঠাৎ একদিন তিনি আমার বাসায় হাজির। তাঁর মতো একজন বিশিষ্ট কবি ও কথাশিল্পী আমার বাসায়—এটা ছিল আমার জন্য বিস্ময়। তিনি আমার প্রথম দিকের একটি উপন্যাসের খুব প্রশংসা করলেন। বললেন, উপন্যাসটি আমি আমার বন্ধু হাসনাত আবদুল হাইকেও পড়তে দিয়েছি। হাসনাত পড়েছে। একদিন তার সাথে দেখা করো। সেদিন আমার বাসায় সারা বিকেল ছিলেন সিদ্দিক স্যার।

সেদিনের পর থেকে তাঁর সঙ্গে আমার গড়ে ওঠে সুসম্পর্ক। প্রথমে তাঁকে আমি আংকেল ডাকতাম। পরে মনে হলো আংকেল ডাকা ঠিক হচ্ছে না। কারণ তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন, স্যার ডাকাই সংগত। তারপর থেকে স্যার ডাকতাম। প্রায়ই তাঁর বাসায় যেতাম। ঢাকা থেকে অফিস শেষ করে বাস থেকে সাভার বাজারে নেমে ঢুকে পড়তাম তার বাসার গলিতে। গলির মুখে গিয়ে উপরে তাকিয়ে দেখতাম গেঞ্জি পরা আবুবকর সিদ্দিক পায়ের ওপর পা তুলে বসে আছেন বারান্দার একটি ইজি চেয়ারে। দৃষ্টিতে শূন্যতা। কিছু দেখছেন, কিংবা কিছুই দেখছেন না। উপর থেকে চাবি ফেলতেন। কলাপসিবল গেটের তালা খুলে আমি ঢুকে পড়তাম তাঁর বাসায়। রাত সাতটা-আটটা, এমনকি কখনো কখনো দশটা পর্যন্ত তাঁর সঙ্গে আড্ডা দিতাম, গল্প-উপন্যাস বিষয়ে তাঁর গুরুত্বপূর্ণ কথাগুলো মনোযোগ দিয়ে শুনতাম। শুনতে শুনতে ঋদ্ধ হতাম। নিজের ভেতরে গড়ে তুলতাম একটি শিল্পপরিমণ্ডল।

তাঁর বাসাভরতি ছিল বই আর বই। বিশ্বসাহিত্যের নানা বই। আমি তখন সামান্য সাংবাদিক, অল্প টাকা বেতন পাই, বই কেনার মতো অত টাকা ছিল না। আমার ভেতর পাঠের তীব্র তৃষ্ণা। বিশ্বসাহিত্যের গুরুত্বপূর্ণ বইগুলো আমি তাঁর কাছ থেকে ধার করে নিয়ে আসতাম। পড়ে আবার ফেরত দিতাম। দু-একটা বই তাঁর অজান্তে রেখেও দিতাম। তিনি বুঝতে পারতেন, কিন্তু কিছু বলতেন না। মনে মনে বুঝি হাসতেন। একবার শুধু বলেছিলেন ‘আনা কারেনিনা’টা পড়া শেষ হলে ফেরত দিও। আমি হেসেছিলাম। পরে আর ফেরত দিইনি।

তিনি আমাকে অনেকটা বাধ্য করেছিলেন অরুণ সোমের অনুবাদে মিখাইল শলোখভের চার খণ্ডের বিশাল উপন্যাস ‘প্রশান্ত দন’ পড়তে। কিন্তু উপন্যাসটি কোথাও খুঁজে পাচ্ছিলাম না। অনেক কষ্টে নানাজনের কাছ থেকে উপন্যাসটির ফটোকপি সংগ্রহ করলাম। মাথায় জেদ ছাপল। এ বই এত দুর্লভ কেন? বাংলাদেশের পাঠকেরা তো বঞ্চিত হচ্ছে। বাংলা বাজারের রোদেলা প্রকাশনীর রিয়াজ খানকে বললাম বইটা ছাপতে। ছেপে দিলেন তিনি। অরুণ সোমের অনুমতি ছাড়াই। কাজটা অবশ্য ঠিক হয়নি আমার। পরে বুঝতে পেরেছি। অরুণ সোমের অনুমতি নেওয়া প্রয়োজন ছিল।

শ্রদ্ধেয় আবুবকর সিদ্দিকের উৎসাহেই দেবেশ রায়ের তিস্তা পুরাণ, তিস্তাপারের বৃত্তান্ত, খরার প্রতিবেদন, মফস্বলি প্রতিবেদন, আপাতত শান্তি কল্যাণ হয়ে আছি উপন্যাসগুলো পড়েছিলাম। একবার কবি রাহেল রাজিবকে দেওয়া যুগান্তরের ঈদ সংখ্যায় প্রকাশিত এক সাক্ষাৎকারে তিনি আমার উপন্যাস সম্পর্কে বিস্তারিত বলেছিলেন। বলেছিলেন, এই তরুণের সম্ভাবনা আছে, একদিন সে ভালো করবে। একজন তরুণ লেখকের জন্য এই কথাগুলো ছিল একটি পুরস্কারের চেয়ে বেশি। যুগান্তরের সেই সংখ্যাটি এখন আর আমার সংগ্রহে নেই। কবি রাহেল রাজিবের কাছে থাকলেও থাকতে পারে।

আবু বকর সিদ্দিক কবি, গীতিকার, কথাশিল্পী। এই তিন পরিচয়ের মধ্যে তাঁর কথাশিল্পী পরিচয়টি ছিল আমার কাছে প্রধান। তাঁর কবিতার চেয়ে গল্প-উপন্যাস পাঠক হিসেবে আমার কাছে ছিল প্রিয়, এখনো আছে। তাঁর জলরাক্ষস, খরাদাহ উপন্যাস পড়ে বিস্মিত হয়েছিলাম। বাংলাদেশে এমন অসাধারণ উপন্যাস লিখিত হয়েছে! তাঁর গল্পগ্রন্থ চরবিনাশকাল, মরে বাঁচার স্বাধীনতা, ভূমিহীন দেশ, শ্রেষ্ঠ গল্প পড়ে এতটাই মুগ্ধ হয়েছিলাম যে, সেই মুগ্ধতার রেশ বহু দিন আমার মধ্যে ছিল। এখনো মাঝেমধ্যে সেই মুগ্ধতা উঁকি দিয়ে যায়। তাঁর বড় মিয়া, কালো কুম্ভির প্রভৃতি গল্পগুলো বাংলা ছোটগল্পের ইতিহাসে অক্ষয় হয়ে থাকবে।

সাহিত্যিক হিসেবে আবুবকর সিদ্দিক এই দেশে ছিলেন অনেকটা কোণঠাঁসা। কোনো এক অজ্ঞাত কারণে আমাদের শীর্ষ সাহিত্যিকরা তাঁকে উপেক্ষা করে গেছেন দিনের পর দিন। তিনি ছিলেন জেনারেল এরশাদের স্ত্রী বিদিশার বাবা, অর্থাৎ এরশাদের শ্বশুর। উপেক্ষার এটা একটা কারণ হতে পারে। না-ও হতে পারে। উপেক্ষার কারণ হয়ত অন্য, যা আমি জানি না, আমার প্রজন্ম জানে না। প্রণম্য কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক ও তাঁর মধ্যে ছিল বৈরী সম্পর্ক। হাসান স্যারের সঙ্গে যখন কথা হতো, তখন সিদ্দিক স্যারের প্রসঙ্গ উঠলেই তিনি তাঁর সমালোচনায় মুখর হয়ে উঠতেন। একইভাবে সিদ্দিক স্যারের সঙ্গে আলাপের সময় হাসান স্যারের প্রসঙ্গ উঠলে তিনিও সমালোচনায় মেতে উঠতেন। দুজনে তখন শিশুর মতো আচরণ করতেন। দুজনের সেই কলহ আমি কৌতূহলের সঙ্গে উপভোগ করতাম। ভাবতাম, বড় বড় সাহিত্যিকরাও তবে ঝগড়াঝাটি করেন! দুজনের সেসব ঝগড়া থেকে শিক্ষণীয় বিষয়গুলো গ্রহণ করে নিতাম।

বিগত এক যুগেরও বেশি সময় ধরে আবু বকর সিদ্দিক থাকতেন ঢাকার বাইরে, খুলনার, মুন্সিপাড়ায় ছোট বোনের বাড়িতে। লেখালেখিতে তেমন সক্রিয় ছিলেন না। অসুস্থতার মধ্যে দিনাতিপাত করছিলেন। আগে মাঝেমধ্যে ফোনে তাঁর সঙ্গে কথা হতো, শেষের দিকে আর হতো না। দৈহিকভাবে তিনি চিরতরে এই পৃথিবী থেকে বিদায় নিলেন, কিন্তু আত্মিকভাবে তিনি আমার কাছে থাকবেন আজীবন। তাঁকে অন্তিম প্রণিপাত।

লেখক:
স্বকৃত নোমান, কথা সাহিত্যিক
Swakrito Noman

*এই  লেখার মতামত  ও বানানরীতি লেখকের একান্তই নিজস্ব। বাঙালীয়ানার সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকা অস্বাভাবিক নয়। তাই এখানে প্রকাশিত লেখা বা লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা সংক্রান্ত আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় বাঙালীয়ানার নেই।

মন্তব্য করুন (Comments)

comments

Share.

About Author

বাঙালীয়ানা স্টাফ করসপন্ডেন্ট