চবিতে প্রগতিশীল জোটের উপর হামলা

Comments

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রগতিশীল ছাত্রজোটের নেতাকর্মীরা ডাকসু নির্বাচন প্রত্যাখান করে ঢাবির ডাকা ধর্মঘটের সমর্থনে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। সেই মিছিলে হামলা করেছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।মঙ্গলবার, ১২ মার্চ, সাড়ে ১২টায় সেন্ট্রাল লাইব্রেরির সামনে এই ঘটনা ঘটে।

হামলায় আহত হন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের চবি শাখার সভাপতি আবিদ খন্দকার। হামলায় তিনি মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হন। এছাড়া আরোও ৮-১০ জন আহত হন।

এরপর ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়। পুলিশ ইউনিয়ন ও ফ্রন্টের নেতাকর্মীদের ভ্যানে তুলে তাদের নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করলেও সিএনজি যোগে তাদের অনুসরণ করে ছাত্রলীগ।

ছাত্র ইউনিয়নের একটি গ্রুপকে পুলিশ ক্যাম্পাসের এক নাম্বার গেইটের সামনে বেশ কিছুক্ষণ বসিয়ে রাখে। তারপর একটি শহরগামী লোকাল বাসে তুলে দেয়।

তখনও তিনটি সিএনজি এই বাসটিকে অনুসরণ করতে থাকে। ফতেহাবার এলাকার কাছাকাছি এলে একটি সিএনজি বাসের সামনে এসে বাসের পথ রোধ করে। তারপর কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মী বাসে উঠে ড্রাইভারকে পেটাতে শুরু করে। তারা বাস থেকে নামিয়ে এনে ছাত্র ইউনিয়ন চবি শাখার এজিএস অপু, ছাত্রফ্রন্টের দেবু আর ইউনিয়নের অপর সদস্য ঋজুকে। তারা লাঠিসোটা দিয়ে এই ছেলেদের মাথায় ও পেটে আঘাত করতে থাকে।

ছাত্র ইউনিয়নের চবি শাখার দুই নারী কর্মী, সাধারণ সম্পাদক মামহবুবা জাহান রুমি এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আশরাফি নিতু ছেলেদের বাঁচানোর চেষ্টা করলে রুমি এবং নিতুকেও উপুরর্যপুরি আঘাত করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এরপর স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাদের উদ্ধার করে ফতেহাবাদ ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে তাদের পাঠানো হয় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে। অপুর অবস্থা আশংকাজনক এখনো আইসিইউতে আছে।

বাঙালীয়ানা/জেএইচ

মন্তব্য করুন (Comments)

comments

Share.