নাগরিকদের মাথাপিছু আয় ১,৯০৯ ডলার

Comments

মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ, ২০১৯, রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের জানান যে ২০১৮-১৯ অর্থবছর শেষ হতে এখনও তিন মাস বাকি, এরমধ্যেই গত ছয় মাসের ব্যবধানে দেশের নাগরিকদের মাথাপিছু আয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৯০৯ ডলারে। ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে মাথাপিছু আয় ছিল এক হাজার ৭৫১ মার্কিন ডলার। সেই হিসাবে গত ছয় মাসের ব্যবধানে দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় বেড়েছে ১৫৮ মার্কিন ডলার।

এ সময় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য ড. শামসুল আলম ও পরিকল্পনা সচিব নুরুল আমিন অর্থমন্ত্রীর সাথে উপস্থিত ছিলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এই অর্থবছরে বেসরকারী বিনিয়োগ কম হয়েছে। তবে আশা করছি আগামী বছর থেকে বেসরকারী বিনিয়োগ আসবে। আমরা সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছি, যাতে বেসরকারী বিনিয়োগকারীরা আবারও ফিরে আসেন।’

মন্ত্রী বলেন, ‘ এ বছর সামষ্টিক অর্থনীতি খুব ভালো ছিল। তাই প্রবৃদ্ধি বেড়েছে। রফতানি, বিনিয়োগ, ম্যানুফ্যাকচারিং খাতের অবস্থা ভালো ছিল।’ অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল জানান, একারণে বর্তমান অর্থবছর শেষে জিডিপির প্রবৃদ্ধি ছাড়াবে ৮ দশমিক ১৩ শতাংশে। গত অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির এই হার ছিল ৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ। মূলত শিল্প খাতের হাত ধরে প্রবৃদ্ধির আকার বেড়েছে। এই অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির আকার দাঁড়াবে ২৫ লাখ ৩৬ হাজার ১৭৭ কোটি টাকা। গত অর্থবছর এটি ছিল ২২ লাখ ৫০ হাজার ৪৭৯ কোটি টাকা। প্রবৃদ্ধি সাধারণত তিনটি বিষয়ের ওপর নির্ভর করে। এরমধ্যে এবার শিল্প খাতে প্রবৃদ্ধি হবে ৬ দশমিক ২৯ শতাংশ, যা গত অর্থবছরে ছিল ৬ দশমিক ৩৭ শতাংশ। সেবা খাতে প্রবৃদ্ধি হবে ৬ দশমিক ৫০ শতাংশ, যা গত অর্থবছরে ছিল ৬ দশমিক ৩৯ শতাংশ। এছাড়া, কৃষি খাতে এ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি হবে ৩ দশমিক ৫১ শতাংশ, যা গত অর্থবছর ছিল ৪ দশমিক ১৯ শতাংশ।

বাঙালীয়ানা/এসএল

মন্তব্য করুন (Comments)

comments

Share.