বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিকে ছুটি

Comments

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে চলমান আন্দোলনে শেষ পর্যন্ত ছাত্র-শিক্ষক সমঝোতা একই বিন্দুতে এলো। সমঝোতা অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিকে বাধ্যতামূলক ভাবে ছুটিতে পাঠাতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদনপত্র পাঠানো হবে।

এই সমঝোতার পর বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়া হয়েছে। আন্দোলনের দ্বাদশ দিনে এলো এমন সিদ্ধান্ত।

সোমবার, ১ এপ্রিল, শিক্ষার্থীরা ৪৮ ঘন্টার সময় বেঁধে দেয় ভিসিকে পদত্যাগ করার জন্য। কিন্তু এই সময়ের মধ্যে ভিসি পদত্যাগ না করায় শিক্ষার্থীরা আন্দোলন চালিয়ে যাবার সিদ্ধান্ত নেয়। বুধবার, ৩ এপ্রিল, ভিসি পদত্যাগ না করায় শিক্ষার্থীরা নিজেদের রক্ত দিয়ে বিভিন্ন স্লোগান লিখে প্রশাসনিক ভবনের বিভিন্ন কক্ষের সামনে টাঙ্গিয়ে রাখে এবং প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়।

আরও পড়ুন: স্বায়ত্বশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ের দাবীতে অভিনব আন্দোলন


এদিকে, কয়েকজন শিক্ষকের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের সাথে সমঝোতা করার চেষ্টা করলে শিক্ষার্থীরা তাদের ফিরিয়ে দেয়। শিক্ষার্থীদের দাবী, ক্যাম্পাস অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ ও হলে ডাইনিং বন্ধ করে দেওয়ায় প্রশাসন অমানবিক কার্যকলাপে লিপ্ত হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২৬ মার্চে এক অনুষ্ঠানে, শিক্ষার্থীদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হলে শিক্ষার্থীরা ৫ দফা দাবীতে আন্দোলন শুরু করে। পরে বিশ্ববিদ্যালয় ভিসি শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বলে উল্লেখ করলে শিক্ষার্থীরা ভিসির পদত্যাগের দাবীতে আন্দোলন শুরু করে।

বাঙালীয়ানা/জেএইচ

মন্তব্য করুন (Comments)

comments

Share.