শর্বরী চৌধুরীর কবিতা

Comments

সূচনা

হেরে যাওয়ার পর কতটা চোখের জল ফেলেছো? 
সে দাগ কি লেগে আছে তোমার মুখেতে? 
জেনো–
প্রতিটি হারই আসলে নতুন স্বপ্নের সূচনা।

নক্ষত্রসন্ধ্যা

তোমাকে দিয়েছিলাম নক্ষত্রসন্ধ্যা। 
বৃষ্টিপতনের শব্দে যখন দূর হতো সমস্ত ক্লান্তি, ভাবতাম গত জন্মের কথা। 
হয়তো তখনো আলোকবর্ষ দূরত্বে বসে দুজনে কথা বলেছি। 
অননুমেয় শৈত্যে ভাগ করে নিয়েছি অবসর যাপন। 
আজ তুমি নেই কোনোখানে
শুধু কাঠচাঁপার গন্ধে অবিরাম ভেসে আসে স্মৃতির বেদনা।

তৃষ্ণা

তৃষ্ণার্ত হয়ে হাঁটছিলাম রাস্তা দিয়ে। 
হঠাৎই বৃষ্টি এল 
দুহাত বাড়িয়ে বৃষ্টির জল নিয়ে মেখে নিলাম সারা গায়ে। 
পান করলাম না 
তোমার কাঁধে মাথাটুকু রাখতে দিয়ো, রাখতে চাই না ঠোঁটে ঠোঁট।
তাতে যদি তৃষ্ণা বেড়ে যায় আরো !

চোখ

যখন আকাশের শূন্যতা চোখে পড়ে, প্রেমের কবিতা লিখি। 
দগ্ধ জীবন থেকে মুক্তি মেলে ক্ষণিকের। 
বৃষ্টির ফোঁটার সঙ্গে আবাহন করি রিরংসা। 
চোখ থাকলেও সুন্দর দেখতে পাই না সবসময়। 
তাই অপেক্ষায় থাকি, কবে সমুদ্রের পাড়ে বসে শুনতে পাব মল্লারের সুর !

নির্ভয়া

নির্ভয়া, তুমি কি দেখছ রাজপথে সারি সারি মোমবাতি মিছিল? 
মোমের আগুনে আজ সমর্পণ নেই, আছে প্রতিবাদ। 
যে আঁধার আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে ধরেছে আমাদের, তারই থেকে মুক্তির নিশান ! 
নির্ভয়া, তুমি কি শুনছো ঝড়ের আওয়াজ? 
সেই ঝড়, যা তছনছ করে দেবে পুরুষের আজন্মলালিত রিরংসার প্রক্ষেপ ! 
অপেক্ষা করো, যেদিন মোমের আগুন নয়, দাবানল এসে
পুড়িয়ে দেবে তোমার, আমার, আমাদের সব যন্ত্রণা।

লেখক:
Shorbori Chowdhury
শর্বরী চৌধুরী
কবি, প্রবন্ধকার ও অধ্যাপক কলকাতা

মন্তব্য করুন (Comments)

comments

Share.

About Author

বাঙালীয়ানা স্টাফ করসপন্ডেন্ট