গ্রেপ্তার হওয়া আলোকচিত্রী শহিদুল আলম ও শিক্ষার্থীদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি জানিয়ে ১১ জন নোবেল বিজয়ী ও বিশ্বের ১৭ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি বিবৃতি দিয়েছেন। বিবিসি বাংলার খবরে জানানো হয়, প্রতিবাদ জানানো নোবেল পুরস্কার বিজয়ীদের মধ্যে ১০ জনই শান্তিতে পদক পেয়েছেন।

এদের মধ্যে রয়েছেন আর্চবিশপ ডেসমন্ড টুটু, শিরিন এবাদি, লেহমাহ বয়ই ও মোহাম্মদ ইউনূস। এছাড়া বিশিষ্ট অপর ১৭ ব্যক্তিত্বের মধ্যে রয়েছেন নরওয়ের সাবেক প্রধানমন্ত্রী গ্রো হারলেম ব্রান্টল্যান্ড, বিশিষ্ট উদ্যোক্তা ও বিলিয়নিয়ার স্যার রিচার্ড ব্র্যানসন, মার্কিন লেখিকা ও মানবাধিকার কর্মী কেরি কেনেডি, ভারতের অভিনেত্রী ও মানবাধিকার কর্মী শাবানা আজমি, হলিউড অভিনেত্রী ও মানবাধিকার কর্মী শ্যারন স্টোন, হাফিংটন পোস্টের প্রতিষ্ঠাতা আরিয়ানা হাফিংটন ও চলচ্চিত্র পরিচালক রিচার্ড কার্টিস।

এক বিবৃতিতে তারা বলেছেন, দুই সপ্তাহ আগে বাস চাপায় দুজন শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে প্রতিবাদ জানাতে রাস্তায় নেমে আসে। তারা নিরাপদ সড়ক, আইনের শাসন ও ন্যায়বিচারের দাবি তোলে। এই ঘটনায় বিশ্বজুড়ে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক গণমাধ্যমে বিশ্বাসযোগ্য যেসব খবর প্রকাশিত হয়েছে তাতে বলা হয়, আন্দোলনরত অল্পবয়সী শিক্ষার্থী ও কর্তব্যরত সাংবাদিকরা পুলিশের উপস্থিতিতেই ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র ও যুব সংগঠনের লোকজনের হামলার শিকার হয়েছেন। খবরে আরও বলা হয়েছে, আন্দোলন শুরু হওয়ার কয়েক দিন পর হাইস্কুলের শিক্ষার্থীদের দাবির সঙ্গে সংহতি জানাতে যখন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নেমে আসেন তখন তাদের গ্রেপ্তার করে এমন সব মামলা দেওয়া হয়েছে যেগুলোতে তাদের রিমান্ড (আইনজীবীদের অনুপস্থিতিতে পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ) ও কারাদণ্ড হতে পারে।

শহিদুল আলমকে বাংলাদেশে ফটো সাংবাদিকতার পুরোধা ব্যক্তিত্ব ও আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আলোকচিত্রী, শিক্ষক ও মানবাধিকার কর্মী আখ্যা বিবৃতিতে তারা বলেছেন, গত ৫ আগস্ট সন্ধ্যার পর গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ছাড়াই বেআইনিভাবে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার লোকজনের হাতে শহিদুল তার বাড়ি থেকে অপহৃত হন। গত সপ্তাহে তাকে ঢাকার এডিশনাল চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে পুলিশের গোয়েন্দা সংস্থার পক্ষ থেকে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়।

স্বাক্ষরকারীরা  শহিদুল আলমের রিমান্ডের  প্রতিবাদ জানায়। তার নিঃশর্ত মুক্তির পাশাপাশি বেআইনি গ্রেপ্তারের ঘটনাগুলো তদন্তের জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানায়।

 

প্রতিবাদ জানানো নোবেল বিজয়ীরা হলেন:

১. আর্চবিশপ ডেসমন্ড টুটু (শান্তি)
২. তাওয়াক্কল কারমান (শান্তি)
৩. মাইরিয়াড ম্যাগুইরে (শান্তি)
৪. বেটি উইলিয়ামস (শান্তি)
৫. অস্কার এরিয়াস (শান্তি)
৬. স্যার রিচার্ড যে. রবার্টস (চিকিৎসা)
৭. হোসে রামোস-হর্তা (শান্তি)
৮. জোডি উইলিয়ামস (শান্তি)
৯. শিরিন এবাদি (শান্তি)
১০. প্রফেসর মোহাম্মদ ইউনূস (শান্তি)
১১. লেহমাহ বয়ই (শান্তি)

মন্তব্য করুন (Comments)

comments

Share.