১৯৯ রানের টারগেট দিল উইন্ডিজ

Comments

সিলেটে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ নির্ধারণী তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে ওয়েষ্ট ইন্ডিজ বাংলাদেশকে ১৯৯ রানের টারগেট দিয়েছে।  ৫০ ওভারে ১৯৮ রান করেছে উইন্ডিজ ৯ উইকেটের বিনিময়ে।

শেই হোপ সাকিবকে মাথার ওপর দিয়ে উড়িয়ে স্পর্শ করলেন টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। আগের ম্যাচে শুরু থেকে শেষ ওভার পর্যন্ত খেলে অপরাজিত ছিলেন ১৪৬ রানে। এ দিনও শুরু থেকেই দারুণ ব্যাটিংয়ে ১২১ বলে সেঞ্চুরি করেন ইনিংসের ৪৮তম ওভারে। ওয়ানডেতে তার চতুর্থ সেঞ্চুরি।

পরপর দুই ওভারে মাশরাফি নিলেন দুই উইকেট। কিমো পলের পর এবার বাংলাদেশ অধিনায়কের শিকার কেমার রোচ।

৮ বলে ৩ রানে আউট হলেন রোচ। ৪৬ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের রান ৯ উইকেটে ১৭৭। হোপ খেলছেন ৯৩ রানে।

কিমো পল আউট হলেন মাশরাফিকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে। অফ কাটারে উপড়ে যায় তার স্টাম্প। বাংলাদেশ অধিনায়ক পেলেন ম্যাচে প্রথম উইকেট।

২২ বলে ১২ রানে আউট হলেন পল। ভাঙল ২৮ রানের জুটি। ৪৩.৫ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের রান ৮ উইকেটে ১৪৩।

সাকিব আল হাসান তার প্রথম উইকেট পান ষষ্ঠ ওভারে রোস্টন চেজকে সৌম্য সরকারের হাতে ক্যাচ বানিয়ে। ৩৪ রানের জুটি ভাঙেন তিনি। তারপর অষ্টম ওভারে ফ্যাবিয়ান অ্যালেনকে ৬ রানে বিদায় করেন সাকিব মোহাম্মদ মিঠুনের হাতে ক্যাচ দিয়ে।

তখন ৩৮ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের রান ৭ উইকেটে ১৪৩।

মেহেদী হাসান মিরাজের দুর্দান্ত ঘূর্ণিতে নিজের নবম ওভারে শিমরন হেটমায়ারকে এলবিডাব্লিউ করেন তিনি। ৬ বল খেলে শূন্য রানে মাঠ ছাড়েন উইন্ডিজ ব্যাটসম্যান। মিরাজ দশম ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক রভম্যান পাওয়েলকে ১ রানে ক্যাচ বানান মুশফিকুর রহিমের।

১০ ওভারে মাত্র ২৯ রান দিয়ে ৪ উইকেট নিলেন এই স্পিনার। ২২তম ওয়ানডেতে এসে ক্যারিয়ারে প্রথমবার ৪ উইকেটের স্বাদ পেলেন মিরাজ। ওয়ানডেতে তার আগের সেরা বোলিং ছিল ৪৬ রানে ৩ উইকেট।

রুবেল হোসেনের বদলে জায়গা পাওয়া মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন নিজের দ্বিতীয় ওভারে পেলেন মারলন স্যামুয়েলসের উইকেট। তার প্রথম ওভারে দুটি বাউন্ডারি মারা মারলন স্যামুয়েলস বোল্ড হলেন ১৯ রানে।

বাংলাদেশের দ্বিতীয় উইকেটও এলো মিরাজের হাত ধরে। ড্যারেন ব্রাভোকে বোল্ড করে ভাঙলেন জমে উঠতে থাকা জুটি।

২৬ বলে ১০ রান করে ফিরলেন ব্রাভো। ১৩.৪ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের রান ২ উইকেটে ৫৭। দ্বিতীয় উইকেট জুটি ছিল ৪২ রানের।

টসে জিতে ফিল্ডিং নেওয়া বাংলাদেশ চতুর্থ ওভারেই ভাঙল ১৫ রানের ওপেনিং জুটি। আগের ম্যাচের মতোই দলকে প্রথম উইকেট এনে দিলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। এবারও তার প্রথম শিকার চন্দ্রপল হেমরাজ।

১৭ বলে ৯ রান করে আউট হলেন হেমরাজ। ৩.৫ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের রান ১ উইকেটে ১৫।

তিন ম্যাচের সিরিজ এখন ১-১ এ সমতায় রয়েছে। বাংলাদেশের একাদশে দুটি পরিবর্তন এসেছে। ইমরুল কায়েসকে বাইরে রেখে নেওয়া হয়েছে মোহাম্মদ মিঠুনকে। আর রুবেল হোসেনের জায়গায় খেলবেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে ওসান থোমাসের জায়গায় নেওয়া হয়েছে ফ্যাবিয়ান অ্যালেনকে।

এই ম্যাচে দেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ৭০টি ওয়ানডেতে দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। এর আগে সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল বাশার সুমন ৬৯টি ওয়ানডেতে দলের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। এবার উইন্ডিজদের বিপক্ষে এই ম্যাচে হাবিবুলের অধিনায়কত্বের রেকর্ড ছাড়িয়ে গেলেন ম্যাশ।

পরিসংখ্যান অনুসারে টাইগারদের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে উইন্ডিজরা। ১৯৯৯ সালের পর থেকে বাংলাদেশ মোট ৩৩ ওয়ানডে ম্যাচে উইন্ডিজের মুখোমুখি হয়েছে। যেখানে ২১ ম্যাচে জিতেছিল ক্যারিবিয়ানরা। আর বাংলাদেশের জয় আছে ১০টি তে। বাকি দুটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়।

বাংলাদেশ একাদশ:
মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মোহাম্মদ মিঠুন, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মেহেদী হাসান মিরাজ এবং মোস্তাফিজুর রহমান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের একাদশ:
রোভম্যান পাওয়েল (অধিনায়ক), চন্দরপল হেমরাজ, শাই হোপ (উইকেটরক্ষক), ড্যারেন ব্রাভো, মারলন স্যামুয়েলস, শিমরন হেটমেয়ার, রোস্টন চেজ, দেবেন্দ্র বিশু, কেমার রোচ, কেমো পল এবং ফ্যাবিয়ান অ্যালেন।

মন্তব্য করুন (Comments)

comments

Share.