সংস্কৃতজন কামাল লোহানী হাসপাতালে

Comments
বাঙালীয়ানার প্রধান উপদেষ্টা, সংস্কৃতজন কামাল লোহানী ফুসফুসের ইনফেকশনজনিত জটিলতায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

কামাল লোহানীর কন্যা বন্যা লোহানী বাঙালীয়ানাকে বলেন, বাবা দু’সপ্তাহ ধরে ফুসফুসের সমস্যায় ভুগছিলেন এবং তার চিকিৎসা চলছিল। তার অবস্থার অবনতি হলে রোববার, ১৯ মে, ২০১৯, বিকেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সিসিইউতে ভর্তি করা হয়।‘

বন্যা জানান, সিসিইউতে কামাল লোহানীর ফুসফুসে পানি জমার কারণে জরুরী ভিত্তিতে তার ফুসফুস থেকে পানি বের করা হয়। এতে তার অবস্থা কিছুটা স্থিতিশীল হওয়ায় ৫ দিন পরে তাকে কেবিনে স্থানান্তর করা হয় বৃস্পতিবার, ২৩ মে, ২০১৯, বিকেল। কিন্তু ফুসফুসে পানি জমা অব্যাহত থাকায় বুধবার, ২৯ মে, ২০১৯ সকালে আবারও ফুসফুস থেকে পানি বের করা হয়। কিন্তু কেন ফুসফুসে পানি জমছে সে ব্যাপারে চিকিৎসকরা এখনও নিশ্চিত হতে পারেননি।

তিনি বর্তমানে বিএসএমএমইউ এর হৃদরোগ বিভাগের জ্যেষ্ঠ অধ্যাপক সজল বন্দ্যোপাধ্যায় এবং বক্ষব্যাধি বিভাগ প্রধান অধাপক এ কে এম মোশাররফ হোসেনের অধীনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

৮৫ বছর বয়সী কামাল লোহানী দীর্ঘদিন যাবৎ ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদযন্ত্র, কিডনি, ফুসফুসের রোগের চিকিৎসা গ্রহণ করছেন বলেও জানান তার মেয়ে।

প্রসঙ্গত, ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে মুক্তিযুদ্ধসহ বাঙালীর প্রতিটি রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক আন্দোলনের অগ্রণী সৈনিক কামাল লোহানী শুধু ভাষা সংগ্রামীই নন তিনি মুক্তিযুদ্ধের একজন শব্দসৈনিক, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের অন্যতম সংগঠক ও বার্তা বিভাগ প্রধান ছিলেন।

পঞ্চাশের দশকে সাংবাদিকতায় যোগ দিয়ে তিনি মিল্লাত, আজাদ, পূর্বদেশ, জনপদ, বঙ্গবার্তা, দৈনিক বার্তায় বিভিন্ন পদে পেশাগত দায়িত্ব পালন করেন। সাম্প্রতিক সময়েও তিনি দৈনিক প্রভাত ও চট্টগ্রামের দৈনিক পূর্বদেশে সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ও সাংবাদিকদের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে স্বাধীনতা পূর্বকাল থেকেই তিনি ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। বাংলাদেশ প্রেস ইন্সটিটিউটের পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন কামাল লোহানী।

বাংলা ও বাঙালীর সাংস্কৃতিক আন্দোলনে তিনি বাফা, ছায়ানট, ক্রান্তি, গণশিল্পী সংস্থা, উদীচী, নব নাট্য সংঘকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। কামাল লোহানী ৯১-৯২ সালে প্রথম দফা এবং ২০০৯-২০১১ সালে দ্বিতীয় দফায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

বাংলা একাডেমী ফেলো কামাল লোহানী ২০১৬ সালে বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ‘একুশে পদক’ এ ভূষিত হন।

বাঙালীয়ানা/জেএইচ

মন্তব্য করুন (Comments)

comments

Share.